ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উদযাপনে চট্টগ্রাম শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের নানা কর্মসূচি

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

চট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী উপজেলার ফরহাদাবাদ ইউনিয়নে অবস্থিত চট্টগ্রাম শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রের উদ্যোগে নানা কর্মসূচির মধ্যেদিয়ে ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চের ভাষণ দিবস- ২০২১ উদযাপিত হয়েছে। গতকাল ৭ ই মার্চ রোজ রবিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

দিবসের প্রাণচাঞ্চল্যকর কর্মসূচির মধ্যে অন্যতম ছিল দিনব্যাপী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ৭ ই মার্চের ভাষণ প্রচার ও প্রদর্শনী। বিকাল তিনটায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলসহ তাঁর শহীদ পরিবারবর্গের রূহের শান্তি কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

ফরহাদাবাদ জামে মসজিদের খতিব হাফেজ মোঃ সরোয়ার ফরহাদ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত দোয়া মাহফিলে কেন্দ্রের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী ও নিবাসী শিশু অংশগ্রহণ করে। অতঃপর বিকাল সাড়ে তিনটায় বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চের ভাষণ নির্ভর আয়োজিত ভাষণ প্রতিযোগিতায় কেন্দ্রের নিবাসী শিশুরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে।

বিকাল সাড়ে চারটায় উপপ্রকল্প পরিচালক জেসমিন আকতার এর সভাপতিত্বে দিবসের তাৎপর্য উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। ফিজিক্যাল ইন্সট্রাক্টর গমন কান্তি দে এর সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনা সভায় কেন্দ্রের নিবাসী শিশু প্রতিনিধি এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনা সভায় অনুষ্ঠানের সভাপতি জেসমিন আকতার উপস্থিত সকলের সামনে ঐতিহাসিক ৭ ই মার্চের পটভূমি, বঙ্গবন্ধুর ৭ ই মার্চের ভাষণের তাৎপর্য এবং পরবর্তীতে ৭ ই মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কো কর্তৃক ঐতিহাসিক দলিল হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। আলোচনা সভা শেষে শিশুদের কন্ঠে ধ্বনিত হয় “যদি রাত পোহালে শোনা যেত বঙ্গবন্ধু মরে নাই…” বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রচিত গান সবাইকে যেমন আবেগাপ্লুত করে তোলে ; ঠিক তেমনি সকলের উপস্থিতিতে প্রচারিত ভাষণ যেন বঙ্গবন্ধুকে আবারও সকলের সামনে দৃশ্যমান করে। অতঃপর অনুষ্ঠানের শেষভাগে ভাষণ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এছাড়াও দিবস উপলক্ষে নিবাসী শিশুদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।…

মতামত