পরিচ্ছন্নতা করসেবায় যুক্ত হয়েছিল কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের পাঁচ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

বান্দরবান পার্বত্য জেলার সরই ইউনিয়নে পরিচ্ছন্নতা করসেবায় যুক্ত হয়েছিলো কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের পাঁচ শতাধিক স্বেচ্ছাসেবক। তারা সবাই মিলে বান্দরবান পার্বত্য জেলার লামা উপজেলার সরই ইউনিয়নের কেয়াজুপাড়া বাজার ও সংলগ্ন এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা করসেবা করেন।

এই স্বেচ্ছাশ্রমে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন লামা সেন্টারের স্টাফদের পাশাপাশি কোয়ান্টাম কসমো স্কুল ও কলেজের দুইশ শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এছাড়াও তারা সরই ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণ, সরই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয় এবং আন্ধারি জামালপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিষ্কার করেন।

সরই ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোঃ জামাল উদ্দিন এবং বাজার কমিটির সদস্যরা ও সভাপতি মোঃ সেলিম এসময় একাজে অংশ নেন এবং প্রশংসা ব্যক্ত করেন।

সুসংগঠিত এই স্বেচ্ছাসেবক দলের প্রধান কোয়ান্টাম কসমো স্কুল ও কলেজের অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ বলেন, ‘নিজের ঘর পরিষ্কারের পর যেমন নির্মল আনন্দ পাওয়া যায় তেমনি আমরা প্রত্যেকে আজকে এই এলাকা পরিচ্ছন্ন করে আনন্দ পাচ্ছি। এর আগেও আমরা এই এলাকায় পরিচ্ছন্নতার কাজ করেছি। এই কাজে আমাদের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছে। আজকে আমরা ৪৩৫ বস্তা আবর্জনা পরিষ্কার করেছি।

উল্লেখ্য কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন কোয়ান্টাম কসমো স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সমাজের বঞ্চিত শ্রেণির শিক্ষার্থীর বিনামূল্যে পাঠদান সহ বাসস্থানের ব্যবস্থা করে আসছে। ২০০১ সালে মাত্র সাত জন ম্রো জাতিগোষ্ঠীর শিশু নিয়ে যাত্রা শুরু করে কোয়ান্টাম কসমো স্কুল ও কলেজ। ২০ বছরের পরিক্রমায় জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে এখন এখানে আড়াই হাজারের বেশি শিক্ষার্থী। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বঞ্চিত শিশু ও এতিমদের নিয়ে এই স্কুলের রয়েছে শিক্ষা ও ক্রীড়ায় দেশসেরা সাফল্য। ঢাকায় জাতীয় শিশু-কিশোর কুচকাওয়াজে তারা প্রথম হয়েছে ২০১৫ থেকে টানা পাঁচ বছর। বুয়েট, মেডিকেল ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করেছে তারা।

এছাড়াও কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের বহুমুখী সেবা কার্যক্রমের মধ্যে প্রবীণ সেবা ২০২০ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হলেও ২০১২ সালে বান্দরবানের রাজবিলায় শুরু হয়েছিল বৃদ্ধাশ্রম ‘আশ্রয়মম’। কিন্তু অনেক প্রবীণকেই পাওয়া যায় যাদেরকে দেখাশোনার কেউ থাকে না, তবু তারা নিজেদের বাড়ি ছেড়ে কোথাও যেতে চান না। তাই অসহায় বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদেরকে তাদের নিজেদের বাড়িতে গিয়ে নিয়মিত যত্ন, খাদ্য, চিকিৎসা, খাবার খাইয়ে দেয়া এবং পরিচ্ছন্নতার কাজ করছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের প্রবীণ সেবায় নিয়োজিত কর্মীরা।

মতামত