৩০ কোটি টাকা খেলাপী ঋন, আমেরিকা পালিয়ে যাওয়া ‘মেহজাবিন’ পুলিশের জালে

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

সতের কোটি টাকা লোন নিয়ে দেশ ছেড়ে আমেরিকা পালিয়ে গিয়েছিলেন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী আমির আজম চৌধুরী, পনের বছর সেই ব্যবসায়ীর কোন হদিস মেলেনি। শেষ পর্যন্ত পুলিশের জালে ধরা পড়েছেন তার স্ত্রী মেহজাবিন আরেফিন। রাজধানী ঢাকার ভাটারা খানার পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, মহিলার পরিচয় যাচাই বাছাই করা হচ্ছে।

জানা যায়, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ শাখা থেকে ‘শেয়ার নিটওয়ার লিমিটেডের’ চারটি গার্মেন্টসের নামে লোন নিয়ে পরিশোধ করেননি হাটহাজারীর আমির আজম চৌধুরী এবং তার স্ত্রী মেহজাবিন আরেফিন। ঋণ আদায় করতে ২০০৮ সালে চট্টগ্রামের অর্থঋণ আদালতে পনের কোটি দুই লাখ ৮৫ হাজার ৭৩৫ টাকা খেলাপী ঋনের মামলা করে মিচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের আগ্রাবাদ শাখা। আদালত রায় দেওয়ার পর ২০০৯ সালে জারী মামলা দায়ের করে ব্যাংকটি। আদালত ১৬ কোটি ৭৩ লক্ষ ২৫ হাজার সাত বাহাত্তর টাকা পঁচিশ পয়সা পরিশোধের নির্দেশ দিলেও পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দেশ ছেড়ে আমেরিকা পালিয়ে যান এই ব্যবসায়ী দম্পতি। গেল পনের বছরে বেশ কয়েকবার আমেরিকা থেকে বাংলাদেশে আসা-যাওয়া করলেও তাদের খুঁজে পায়নি পুলিশ।

চলতি বছরের ৯ই জুন আদালত তাদের সাজা পরোয়ানা ইস্যু করে। দেশে ফেরার গোপন খবর পেয়ে রাজধানী ঢাকার বসুন্ধরা আবাসিক এলাকা থেকে মেহজাবিন আরেফিনকে গ্রেফতার করে ভাটারা থানা পুলিশ।

সুত্রমতে, দীর্ঘ তের বছর পর আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর জালে ধরা পড়লেও, পুলিশের সাথে গোপন সমঝোতা করে বেঁচে যাবার পাঁয়তারা করছে মেহজাবিন আরেফিন। ৫৪ ধারায় গ্রেফতার দেখিয়ে তাকে কোর্টে চালান দেবার তদবির করছে দেশের একাধিক ঋন খেলাপী রাজনৈতিক নেতা।

দুইটি মামলায় মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৩০ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়া এই দম্পতির কাছে।

মতামত