ই-পেপার | রবিবার , ৩রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
×

চট্টগ্রাম-১৫: আচরণবিধি লঙ্ঘন করে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন আইআইইউসি’র শিক্ষক-কর্মকর্তারা

রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থী মোতালেবের…

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

চট্টগ্রাম-১৫ আসনে (লোহাগাড়া-সাতকানিয়া আংশিক) আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর পক্ষে বেসরকারী আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা কর্মচারী দিয়ে প্রচারণার অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) দুপুরে আসনটির স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এ মোতালেব রিটার্নিং অফিসার ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রধান নির্বাচনী সমান্বয়কারী ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান।

চট্টগ্রামের রিটানিং অফিসারের কাছে দেয়া অভিযোগে উল্লেখ করা হয়- ‘বুধবার নগরীর টেরিবাজারের বিভিন্ন জায়গায় নির্বাচনী প্রচারকালে আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর পক্ষে আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের (আইআইইউসি) বেশ কিছু শিক্ষক এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রচারণায় অংশ নিতে দেখা যায়। তারা ব্যানার হাতে নানা বক্তব্যও রেখেছেন। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছেন- প্রফেসর ডা. মহিউদ্দিন, প্রফেসর আফজল আহমদ, রেজিস্ট্রার আক্তারুজ্জামান, ট্রেজারার প্রফেসর ড. হুমায়ুন কবীর, প্রক্টর ইফতেখার উদ্দিন, ডাইরেক্টর ফয়সল, খোরশেদ ও নাসির উদ্দিন।’

অভিযোগে আরও বলা হয়- আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব মাইক্রোবাস ও ৩৫ আসনের একটি বাসযোগে প্রতিদিন কতিপয় বহিরাগত শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন। পাশাপাশি অনেককে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে চাকুরি দেয়ারও প্রলোভন দেখানো হচ্ছে বলে উল্লেখ করা হয়।’

উল্লেখ্য, আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী বিশ্ববিদ্যালয়টির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে, এই আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী’র মোবাইল একাধিক বার কল করলেও তিনি ফোন না ধরায় তাঁর বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

স্বতন্ত্র প্রার্থী এমএ মোতালেব এর প্রধান নির্বাচনী সমন্বয়কারী ডা. আ ম ম মিনহাজুর রহমান জানান, নির্বাচন কমিশনের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী কোন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রকাশ্যে কোন নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননা। এ কারণে রিটার্নিং অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ গৃহীত হওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন রিটার্নিং অফিসার ও চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান এর স্টাফ অফিসার প্লাবন কুমার বিশ্বাস।

জানতে চাইলে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত অফিসিয়ালি জানতে পারিনি। যেহেতু ঘটনাস্থল চট্টগ্রাম নগরীর কথা উল্লেখ করা হয়েছে এবিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা ব্যাবস্থা গ্রহণ করবেন অথবা নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটির কাছে পাঠাবেন এবং তদন্ত পূর্বক যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।