ই-পেপার | শনিবার , ১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
×

মন্ত্রিসভায় ওয়াসিকা ও নজরুল ইসলাম চৌধুরী দক্ষিণ চট্টগ্রামে আনন্দ উচ্ছ্বাস

প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন আওয়ামীলীগ নেতারা

সিটিজি ভয়েস টিভি ডেস্ক:

দ্বাদশ সংসদের মন্ত্রিসভার কলেবর বেড়েছে। বর্ধিত মন্ত্রিসভার সদস্যরা শুক্রবার (১ মার্চ) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় বঙ্গভবনে শপথ নেন।

মন্ত্রিপরিষদের নতুন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে যুক্ত হয়েছেন সংরক্ষিত আসনে তিনবারের সংসদ সদস্য ওয়াসিকা আয়েশা খান এবং চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া আংশিক) আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী। ইতিমধ্যে সরকারের সম্প্রসারিত নতুন মন্ত্রীসভায় শপথ গ্রহণ করেছেন তাঁরা। বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন তাদের শপথ বাক্য পাঠ করান। তবে তাদের কে কোন মন্ত্রণালয় পাচ্ছেন তা এখনো জানানো হয়নি।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০ টায় মন্ত্রী পরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন দুই এমপিকে ফোন করে শুক্রবার সন্ধ্যা ৭ টায় প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের আমন্ত্রণ জানান।

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন সবসময় বিতর্কের ঊর্ধ্বে থাকা, সদা হাস্যোজ্জ্বল সংরক্ষিত আসনে তিনবারের এমপি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক এবং লোহাগাড়া উপজেলার চুনতির পুত্রবধূ ওয়াসিকা আয়েশা খান। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান কায়সারের কন্যা। তাঁর মা বেগম নিলুফার কায়সার ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী। ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য হন ওয়াসিকা। পরে ২০১৮ সালের নির্বাচনেও সংরক্ষিত আসন থেকে সংসদ সদস্য হন তিনি। পরের বছরে আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদকের দায়িত্ব পান।

প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া আংশিক) আসন থেকে টানা তিনবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম চৌধুরী। তিনি শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটি এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ছিলেন। এর আগে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটিতে সদস্যের দায়িত্ব পালন করেছিলেন এমপি নজরুল ইসলাম চৌধুরী। নজরুলের প্রতিমন্ত্রী হওয়াকে চমক হিসেবে দেখছেন অনেকে।

দক্ষিণ চট্টগ্রাম থেকে ওয়াসিকা আয়েশা খান ও নজরুল ইসলাম চৌধুরী মন্ত্রিসভায় যুক্ত হওয়ায় আনন্দ উচ্ছ্বাস বয়ে যাচ্ছে দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীর মাঝে।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিজয় কুমার বড়ুয়া দৈনিক আজাদীকে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ওয়াসিকা আয়েশা খানকে মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভুক্ত করার কারণে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাবাসী অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত। বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার এই পদক্ষেপের কারণে বহুদিন পর দক্ষিণ চট্টগ্রামের মানুষের আকাঙ্খার বাস্তবায়ন হয়েছে। তিনি রাজনীতিবিদের সন্তান বলেই নয় তিনি নিজেও একজন মেধাবী, প্রজ্ঞাবান ও কমিটেড রাজনীতিবিদ। এছাড়াও চট্টগ্রাম-১৪ আসন থেকে টানা তিনবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম চৌধুরীও একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ উনাদের দুজনকে মন্ত্রীসভায় যুক্ত করায় দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য প্রফেসর ডাঃ আ ম ম মিনহাজুর রহমান দৈনিক আজাদীকে বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ওয়াসিকা আয়েশা খান সবধরনের বিতর্কের উর্ধ্বে থাকা একজন রাজনীতিবিদ এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের অন্যতম সংগঠক প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান কায়সারের কন্যা। পাশাপাশি চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ-সাতকানিয়া আংশিক) আসন থেকে টানা তিনবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম চৌধুরীও একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ। উনাদের মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভুক্তি আমাদের জন্য আনন্দের এবং গর্বের। বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার এই পদক্ষেপ নিয়ে আমাদের দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীকে সম্মানিত করেছেন সেজন্য আমরা কৃতজ্ঞ।

বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সাজেদা সুরাত দৈনিক আজাদীকে বলেন, চট্টগ্রাম থেকে ওয়াসিকা আয়েশা খান মন্ত্রিসভায় যুক্ত হওয়ার বিষয়টি মাইলফলক হয়ে থাকবে। যা উত্তর-দক্ষিণ নয়, পুরো চট্টগ্রামবাসীর জন্য গর্বের। আমি যেমন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান তেমনি তিনিও একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং আমাদের লোহাগাড়া উপজেলার চুনতির পুত্রবধূ সেই হিসেবে মন্ত্রীসভায় উনার অন্তর্ভুক্তি আমাদের জন্য অনেক বেশি আনন্দের এবং গর্বের। মন্ত্রীসভায় উনার অন্তর্ভুক্তিতে চট্টগ্রামের নারীদের নানা ক্ষেত্রে যে বাধা সেটি অপ্রতিরোধ্যভাবে এগিয়ে যাবে। উনাকে মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভুক্ত করায় দক্ষিণ চট্টগ্রামবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অশেষ ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।